ট্রাক চাপা দিয়ে কানাডায় মুসলিম পরিবারের ৪ জনকে হত্যা, ঘাতক গ্রেফতার

ট্রাক চাপায় কানাডায় মুসলিম পরিবারের ৪ জনকে হত্যা, ঘাতক গ্রেফতার ট্রাক চাপায় নিহত এবং আহতরা হলো পাকিস্তানী-কানাডিয়ান পরিবার। কানাডায় পাকিস্তানী এক মুসলিম পরিবারের ৪ জনকে ট্রাক চাপা দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। মুসলিম হওয়ায় তাদের হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ওই পরিবারের একজন সদস্য হামলা থেকে বেঁচে গেছে। ৯ বছর বয়সী ওই শিশু এখন হাসপাতালে। তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক। এদিকে এ ঘটনায় ২০ বছর বয়েসী হামলাকারী নাথানিয়েল ভেল্টম্যানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় নিহতরা হলেন সাঈদ আফজাল (৪৬) এবং তার স্ত্রী মাদিহা সালমান (৪৪), আফজালের মা (৭৪) এবং আফজাল-মাদিহা দম্পতির কন্যা ইয়ুমনাহ আফজাল (১৫)। এই দম্পতির একমাত্র পুত্র ফায়েজ আফজাল (৯) নিকটস্থ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। অন্টারিয়ো প্রদেশের লন্ডন সিটির মেয়র এড হোল্ডার এবং সিটি পুলিশের প্রধান স্টিভ উইলিয়ামস পৃথকভাবে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ধর্মীয় বিদ্বেষমূলকভাবে এ হামলা চালানো হয়েছে এবং এটি মুসলিম-বিদ্বেষ থেকে সুপরিকলিপ্ত একটি হত্যাযজ্ঞ।

এ ঘটনায় গভীর উদ্বেগ এবং হতাহতদের জন্যে দুঃখ প্রকাশ করে এক টুইট বার্তায় কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো লিখেছেন, ‘অন্টারিয়ো প্রদেশের লন্ডনের খবর শুনে আমি মর্মাহত। রবিবারের ঘৃণিত ঘটনায় যারা প্রিয়জনদের হারিয়েছেন, আমরা তাদের পাশে আছি। আমরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশুটির পাশেও আছি। তার জন্য আমার হৃদয় ভেঙে যাচ্ছে। সুস্থ হয়ে উঠলে তুমি আমাদের অন্তরে ঠাঁই পাবে। হামলার তীব্র নিন্দা ও নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে অন্টারিয়ো প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী ডগ ফোর্ড টুইটারে লিখেছেন, ঘৃণা ও ইসলামবিদ্বেষের কোনো স্থান অন্টারিয়োতে নেই। লন্ডন শহরের মেয়রও এ ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

হামলাকারি ভেল্টম্যান গ্রিণ লাইটের অপেক্ষায় থাকা পরিবারটিকে চাপা দিয়েই দ্রুতবেগে তার পিকআপ ট্রাক চালিয়ে সটকে পড়তে চেয়েছিল। অকুস্থল থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দূর একটি শপিং মলের পার্কিং লট থেকে তাকে পুলিশ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। গ্রেফতারের সময় ভেল্টম্যান কোন বাদানুবাদ করেনি। ট্রাকটিও পুলিশের কব্জায় রয়েছে। পুলিশ কমিশনার উইলিয়ামস সোমবার সন্ধ্যায় আরো জানিয়েছেন, ‘আমরা বিশ্বাস করছি যে, সেটি ছিল পরিকল্পিত একটি হামলা এবং মুসলমান বলেই পরিবারটি এমন নিষ্ঠুর হামলার শিকার হয়েছেন।

তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের ডিটেকটিভ পোল ওয়েইট বলেছেন, পরিবারের সকলেই রাস্তা অতিক্রমের জন্যে হাইড পার্ক রোড এবং সাউথ ক্যারিজ রোডের ইন্টারসেকশনে দাঁড়িয়েছিলেন। সিগন্যালে গ্রীণলাইট জ্বলে উঠার অপেক্ষায় থাকাবস্থায় উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে কালো রংয়ের পিকআপ তাদের ওপর হামলে পড়ে। চাপা দিয়েই সটকে পড়েছিল পিকআপটি। তবে কীভাবে পিকআপ ট্রাকের ড্রাইভার ভেল্টম্যানকে শনাক্ত করা হয়েছে এবং কয়েক ঘন্টার মধ্যেই বাণিজ্যিক কেন্দ্রের পার্কিং লট থেকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে তা বিস্তারিতভাবে জানাননি তদন্ত কর্মকর্তারা।

Copyright© by Kutubdia News

kutubdianews

দৈনিক কুতুবদিয়া নিউজ সর্বস্তরের খবর অনুসন্ধানে সত্য তুলে ধরবো আমরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: